সেই সিসা কারখানা উচ্ছেদ, এলাকাবাসীর স্বস্তি 

161
নিজস্ব প্রতিবেদকঃ মুন্সিগঞ্জের সিরাজদিখানে অবৈধভাবে গড়ে উঠা সিসা কারখানায় অভিযান চালিয়ে গুড়িয়ে দিয়েছে পরিবেশ অধিদপ্তর। ১১ এপ্রিল (সোমবার) দুপুরে ঢাকা জেলার দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানা ঘেষা সিরাজদিখান উপজেলার বালুরচর ইউনিয়নের মধ্যের চর গ্রামের বেনাস লেকভিউ তে গড়ে উঠা পাঁচটি  কারখানায় উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করে। এতে নেতৃত্ব দেন পরিবেশ অধিদপ্তরের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নওরিন হক এবং তাকে সার্বিক সহযোগিতা প্রদান করেন সিরাজদিখান থানা পুলিশ।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে কারখানাগুলো মুন্সিগঞ্জ জেলার ভিতরে হলেও এর ভুক্তভোগী ছিলো ঢাকার কেরানীগঞ্জে উপজেলার মানুষ। কারখানাগুলোতে সারারাত ভরে পোড়ানো হতো ব্যাটারিসহ বিষাক্তসব জিনিসপত্র। পোড়া বিষাক্ত সিসা কৃষকের শাকসবজি,ঘাষসহ পরিবেশের মারাত্মক ক্ষতিসাধন করে আসছিলো। সন্ধ্যার পর  সিসা গালানো শুরু হলে বাতাশে বিষাক্ত সিসার গন্ধে এলাকায় থাকা দুস্কর হয়ে উঠেছিলো।
বারবার অভিযোগ ও কারখানা বন্ধের দাবিতে মানববন্ধন করেও এলাকার কিছু প্রভাবশালীর কারনে বন্ধ করা যায়নি ক্ষতিকর এসব কারখানা।
গরুর খামারী মঞ্জুর মিয়া জানান আমার ২০ লিটার দুধ দেয়া গাভীটা ঘাষ খাওয়ার পর বিষক্রিয়ায় মারা জায় যার বাজার মূল্য ছিলো প্রায় দুই লখ পঞ্চাশ হাজার টাকা।
 দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানা কোন্ডা ইউনিয়ন নতুন বাক্তারচর গ্রামের একাধিক গরু খামারি বাংলা নিউজকে জানান, এই সিসা কারখানাগুলোর কারণে এলাকায় কোন আবাদ হয়না, গাছ গুলো মারা যাচ্ছে, ঘরের টিন নষ্ট হচ্ছে। সিসাযুক্ত ঘাষ খেয়ে পাঁচ/সাতটি গরু-ছাগলও মারা গেছে। এর মালিক এলাকায় প্রভাবশালী ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধি হওয়ায় তাকে বারবার বলেও কাজ হয়নি।  কারখানা গুলো ভেঙে দেওয়ায় প্রশাসনকে ধন্যবাদ।
এব্যাপারে মুন্সিগঞ্জ জেলা পরিবেশ অধিদপ্তরের পরিচালককে একাধিক ফোন করা হলেও তিনি তার রিসিভ
 করেননি। তবে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক উপপরিচালক উচ্ছেদের ব্যাপারটি নিশ্চিত করেছেন এবং বলেছেন নিয়মিত কার্যক্রমের অংশ হিসেবেই এই অভিযান।