যারা আন্দোলনের নামে মানুষের ক্ষতি করে তারা সন্ত্রাসীঃ এ্যাড. কামরুল ইসলাম 

88
কেরানীগঞ্জ উপজেলা করেস্পন্ডেটঃ যারা আন্দোলনের নামে মানুষের ক্ষতি করে তারা সন্ত্রাসী, আন্দোলনের নামে মানুষ পুড়ানো, স্কুল পুড়ানো, কোরান শরীর পোড়োনা কে আন্দোলন বা গণঅভ্যুত্থান বলেন না, এটা সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড। আর সন্ত্রাসীদের মাঝে মানুষের জন্য ভালোবাসা নাই, দেশের জন্য ভালোবাসা নাই। যারা দেশের বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে ফায়দা লুটাতে চাইবে তাদের দাঁত ভাঙা জবাব দেওয়া হবে বলে হুশিয়ারি উচ্চারণ করেন আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম।
১৩ আগস্ট শনিবার বিকেলে কেরানীগঞ্জ মডেল থানার কলাতিয়া  উচ্চ বিদ্যালয় ও কলাতিয়া ডিগ্রী কলেজের এর উদ্যাগে ১৫ই আগস্ট জাতীয় শোক দিবস ও আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন।
এসময় তিনি কোমলমতি ছাত্রছাত্রীদের উদ্দেশ্য করে বলেন, ১৩ বছর আগেও দেশ ডিজিটাল ছিলনা। আজ আমাদের দেশ  ডিজিটাল বাংলাদেশ।  এখন ঘরে বসেই মোবাইলে মাধ্যমে যে কোন প্রশ্নের উত্তর পাওয়া যায়। অনেক কিছু করা যায়। ফেইসবুক চালানোর জন্য মোবাইল না, এটা সঠিক কাজে লাগাতে হবে।  আর অবিভাবকদেরও এ বিষয়ে খেয়াল রাখতে হবে। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের  সোনার বাংলাদেশ গড়তে হলে দেশ প্রেমের পাশাপাশি পড়ালেখার বিকল্প নেই।
কলাতিয়া ডিগ্রি কলেজের গভর্নিং বডির  সভাপতি নুরুউদ্দিন আহমেদের সভাপতিত্বে
অনুষ্ঠিত সভায় প্রধান বক্তা হিসেবে বক্তব্য রাখেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য ড. আ আ ম স আরিফিন সিদ্দীকি।
এসময় উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ইঞ্জিনিয়ারিং ইনিস্টিউটের সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার আব্দুল হামিদ, ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সাবেক মহাসচিব আব্দুল জলিল ভূইয়া , কেরানীগঞ্জ মডেল আওয়ামী লীগের সভাপতি ইউসুফ আলী চৌধুরী সেলিম, সাধারণ সম্পাদক আলতাফ হোসেন বিপ্লব, সহ-সভাপতি সফিউল আজম খান বারকু, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ভিপি মনির, শাক্তা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান হাবিব, সরকারি ইস্পাহানি কলেজের অধ্যক্ষ রওশনারা বেগম, কলাতিয়া ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ মোঃ লিয়াকত আলী, নয়াবাজার ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ আব্দুল মালেকসহ অনকে।